চক মাটির অজানা কিছু ব্যাবহার যা আপনি হয়তো আগে জানতেন না

ছোটবেলার ক্লাসরুমের কথা মনে আছে? সেই ক্লাস নেওয়া শেষ হয়ে গেলেই বাকি চক নিয়ে কাড়াকাড়ির কথা? প্রিয় বন্ধুকে সব কিছুর ভাগ দেওয়া যেত। তবে চকের ভাগ নৈব নৈব চ! বাড়ি ফিরে সেই চক নিয়ে কতই না কারিকুরি। দিন ফুরোলেই চক শেষ। আবার নতুন চকে ব্যাগ ভরানোর চিন্তায় ছুটোছুটি। বড় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেই চকের গুরুত্বও কমতে থাকে। কিন্তু জানেন কি লেখার পাশাপাশি বাড়ির নানা সমস্যা মেটাতে চকের প্রয়োজন ঠিক কতটা। অন্যান্য ব্যবহারগুলি শুনলে আপনি অবাক হয়ে যাবেন।

ধরুন, কোনও অনুষ্ঠানে প্রচুর সাজগোজ করে গিয়েছেন। সেখানে সকলের সঙ্গে দেখা সাক্ষাৎ, আলাপচারিতার পর খেতে বসলেন। ব্যস! ঠিক সেই সময়ই মুখে তোলা খাবার গিয়ে পড়ল আপনার পোশাকে। সঙ্গে সঙ্গে ন্যাপকিন দিয়ে মুছে তো নিলেন, কিন্তু দাগ উঠল কই? পরিবর্তে হলদে দাগে আপনার পোশাকের দফারফা।

খুঁতখুঁত করতে করতে বাড়ি ফিরেও ভাবনার শেষ নেই। কিন্তু জানেন কি আপনার বাড়িতে দু-চারটি চক থাকলে খুব সহজেই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। ঠিক যে জায়গায় খাবার পড়েছে, সেখানে চক ঘষে নিন। মিনিট দশেক ওই পোশাকটিতে আর ভুলেও হাত দেবেন না। তারপর ওই পোশাকটি ওয়াশিং মেশিনে ঢুকিয়ে দিন। কাচা হয়ে গেলে দেখবেন নোংরা দাগ এক্কেবারে গায়েব।

ওয়াশিং মেশিনে কাচা শার্টের ঘাড়ের কাছে নোংরা থেকে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এই ধরনের সমস্যা থেকে আপনাকে মুক্তি দিতে পারে চক। শার্ট ওয়াশিং মেশিনে দেওয়ার আগে ভাল করে চক দিয়ে কলার এবং হাতা ঘষে নিন। কাচার পর দেখুন জাদু। আপনার দু’বছর পুরনো শার্টও হয়ে উঠবে এক্কেবারে নতুন।

বাড়ির দেওয়াল আমাদের কত কিছুর সাক্ষী। আপনার খুদের প্রথম কারিকুরি থেকে নাম লেখা শেখা অভ্যাস করা পর্যন্ত দেওয়ালই যেন একমাত্র ভরসা। কিন্তু দেওয়াল নোংরা হল মানেই তাতে রং করিয়ে নিলাম, তা তো হয় না। তাই দাগমুক্তির উপায় হতে পারে একমাত্র চক। ছোটখাটো সমস্যা ব্যবহার করে দেখলেই বুঝতে পারবেন কীভাবে আপনার ঘরের জেল্লা ফিরে আসে।

বর্ষাকালে আলমারিতে ভ্যাপসা গন্ধ ছাড়ে। সেই সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে চক। তাই বর্ষার আগেই আলমারিতে জামাকাপড়ের আশপাশ দিয়ে চকের গুড়ো ছড়িয়ে দিন। তাতে গায়েব হবে দুর্গন্ধ। পরিবর্তে আলমারি খুললেই সুগন্ধিতে মন হবে ফুরফুরে।

রূপোর কিংবা যেকোনও জাঙ্ক গয়নাগাটি কালো হয়ে যাওয়ার সমস্যা থাকেই। পরিষ্কারের সবচেয়ে ভাল উপায় চকের গুড়ো। পারলে ওই গয়নাগাটির উপর চকের গুঁড়ো ছড়িয়ে রাখুন। ছোট্ট একটি কাজেই দেখবেন দিনের পর দিন আপনার গয়না রয়েছে একেবারে ঝকঝকে ও সুন্দর।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *